পশ্চিমবঙ্গের তিস্তাপাড়ে তৈরি বাঁশের কাঠি টেক্কা দিতে চলেছে চিন-ভিয়েতনাম

JUBO DARPAN NEWS
দিলু দাস, সস্পাদক যুব দর্পণ: পেশায় মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়র । পড়াশোনা পণ্ডিচেরিতে । কিন্তু তিনি ব্যবসা শুরু করেছিলেন চেনা স্রোতের বিপরীতে গিয়েও । আজ কোটি টাকার উপর টার্নওভার সেই ব্যবসারই । পূর্ব মেদিনীপুরের সুব্রত ঘড়াই ৷কারখানা চালাচ্ছেন বাঁশের রকমারি কাঠি বানানোর ৷পণ্ডিচেরিতে থাকাকালীন বাঁশের সামগ্রী তৈরির একটি প্রকল্পে কাজ করার সময় তাঁর মাথায় আসে ব্যবসা করার পরিকল্পনা৷ এরপর জলপাইগুড়িতে আসেন বিবাহসূত্রে৷ বাঁশের জোগানও প্রচুর উত্তরবঙ্গের এই এলাকায় ৷ তাই ফের একবার মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে পুরোনো সেই ইচ্ছাই ৷ সেই থেকেই সুব্রতর এই বিশাল কর্মযজ্ঞ জলপাইগুড়ির তিস্তাপাড়ে ৷

বাঁশ উৎপাদনে এই মুহুর্তে বিশ্বে ভারত রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে৷ কিন্তু চিন এবং ভিয়েতনামের মতো দেশগুলো দখল করে রেখেছে ভারতে বাঁশজাত সামগ্রীর প্রায় গোটা বাজারটাই । প্রতিবছর গড়ে ৩ লক্ষ ২০ হাজার মেট্রিক টন বাঁশ কাঠির মধ্যে ৭০ শতাংশের জোগান দিচ্ছে চিন এবং ভিয়েতনাম । প্রতি বছর ৬০ হাজার মেট্রিকটন বাঁশ-কাঠি চিন রপ্তানি করে থাকে ভারতে । এবার চিনের একচেটিয়া বাজারকে টেক্কা দিতে তৈরি সুব্রতর কারখানায় তৈরি বাঁশ-কাঠি৷ সেখানে তৈরি হচ্ছে ধূপকাঠির কাঠি, কাবাব কাঠি ও আইসক্রিমের কাঠি।